রাশিয়ার হাতে হাত রেখে কাজ করবে উত্তর কোরিয়া: কিম


উত্তর কোরিয়ার নেতা কিম জং উন শক্তিশালী দেশ গড়ার লক্ষ্যে ও কৌশলগত সহযোগিতা জোরদার করতে রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনের ‘হাতে হাত রেখে’ কাজ করার অঙ্গীকার করেছেন। সোমবার (১২ জুন) উত্তর কোরিয়ার রাষ্ট্রীয় গণমাধ্যম কেসিএনএ এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানায়।

রাশিয়ার জাতীয় দিবস উপলক্ষে পুতিনকে পাঠানো এক বার্তায় কিম এ প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন। এমনকি, বার্তায় কিম বলেছেন, পুতিনের ইউক্রেন আক্রমণের সিদ্ধান্ত পুরোপুরি সঠিক। রাশিয়ার প্রতি আমার পূর্ণ সমর্থন ও সংহতি রয়েছে।

আরও পড়ুন: ওয়াগনার বাহিনীর নিয়ন্ত্রণ নিতে যাচ্ছে রাশিয়া

কেসিএনএর প্রকাশিত বার্তায় কিম বলেছেন, যুদ্ধে রাশিয়ার জয় ন্যায্য ও নিশ্চিত। তাদের এ বিজয় ইতিহাসে নতুন এক গৌরবগাঁথা যোগ করবে।

এ বার্তায় কিম মস্কোকে ঘনিষ্ঠ ও কৌশলগত সহযোগিতার আহ্বান জানিয়ে বলেছেন, একটি শক্তিশালী দেশ গড়ার লক্ষ্য পূরণে রুশ প্রেসিডেন্টের সঙ্গে এক হয়ে কাজ করবে উত্তর কোরিয়া। বিষয়টি দুই দেশের জনগণের অভিন্ন আকাঙ্ক্ষার প্রতিফলন ঘটাবে।

কিম আরও বলেন, বর্তমানে রাশিয়া ও উত্তর কোরিয়ার মধ্যকার বন্ধুত্ব একটি ‘মূল্যবান কৌশলগত সম্পদে’ পরিণত হয়েছে। তার মতে, তিনি পিয়ংইয়ং ও মস্কোর মধ্যে ভালো প্রতিবেশী সম্পর্ক ও কৌশলগত সহযোগিতা অব্যাহত রাখতে প্রস্তুত।

আরও পড়ুন: ক্যাপিটল হিল থেকে ৩০ মাইল দূরে বন্দুক হামলা, নিহত ৩

সবশেষে তিনি পুতিনের সুস্বাস্থ্য ও কাজের সাফল্যের পাশাপাশি রুশ জনগণের চিরন্তন সমৃদ্ধি, উন্নয়ন ও বিজয় কামনা করেন।

গত বছর ইউক্রেন আক্রমণের পরে মস্কোকে সমর্থনের মাধ্যমে ক্রেমলিনের সঙ্গে ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক গড়ে তোলার চেষ্টা করে আসছে পিয়ংইয়ং। তাছাড়া দেশটি যুক্তরাষ্ট্র ও পশ্চিমা দেশগুলোর আধিপত্যবাদী নীতিরও সমালোচনা করেছে।

উত্তর কোরিয়া ইউক্রেন সংঘাতকে রাশিয়াকে ধ্বংস করতে যুক্তরাষ্ট্রের ‘ছায়া যুদ্ধ’ হিসেবে বর্ণনা করেছে। পাশাপাশি কিয়েভে পশ্চিমাদের সামরিক সহায়তা সরবরাহের নিন্দা জানিয়েছে।

আরও পড়ুন: ড্রোন উৎপাদনের কারখানা তৈরিতে রাশিয়াকে সাহায্য করছে ইরান

চলতি বছরের জানুয়ারিতে উত্তর কোরিয়ার বিরুদ্ধে রাশিয়ার ভাড়াটে গ্রুপ ওয়াগনারকে রকেট ও ক্ষেপণাস্ত্র দিয়ে সহায়তা করার অভিযোগ তোলে যুক্তরাষ্ট্র। তবে সে অভিযোগ অস্বীকার করে পিয়ংইয়ং।

সূত্র: সাউথ চায়না মর্নিং পোস্ট

এসএএইচ

পাঠকপ্রিয় অনলাইন নিউজ পোর্টাল জাগোনিউজ২৪.কমে লিখতে পারেন আপনিও। লেখার বিষয় ফিচার, ভ্রমণ, লাইফস্টাইল, ক্যারিয়ার, তথ্যপ্রযুক্তি, কৃষি ও প্রকৃতি। আজই আপনার লেখাটি পাঠিয়ে দিন [email protected] ঠিকানায়।



Source link

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back To Top