নতুন আইনি জটিলতায় পড়তে পারেন ট্রাম্প


২০২০ সালের মার্কিন প্রেসিডেন্ট  নির্বাচনের ফল পাল্টে দেওয়ার চেষ্টা অভিযোগে ফৌজদারি মামলা দায়ের করা হয়েছে সাবেক প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের বিরুদ্ধে। নির্বাচনে হস্তক্ষেপের অভিযোগে তাকে অভিযুক্ত করেছেন স্পেশাল প্রসিকিউটর জ্যাক স্মিথ। কিন্তু জর্জিয়া অঙ্গরাজ্যে ফল পাল্টে দেওয়ার চেষ্টারও অভিযোগ আনা হতে পারে তার বিরুদ্ধে। এটি হতে পারে ট্রাম্পের জন্য সবচেয়ে কঠিন আইনি চ্যালেঞ্জ। কারণ ইতোমধ্যে প্রায় ২০ ব্যক্তিকে অবহিত করা হয়েছে তাদেরকে অভিযুক্ত করা হতে পারে।

মার্কিন সংবাদমাধ্যম নিউ ইয়র্ক টাইমস এক অনুসন্ধানী প্রতিবেদনে তুলে ধরেছে কীভাবে ট্রাম্প জর্জিয়ার ফল পাল্টে দেওয়ার চেষ্টা করেছেন।

ভোটের দুই মাস পর পর্যন্ত জর্জিয়াসহ  বিভিন্ন দোদুল্যমান অঙ্গরাজ্যে ভোটের ফল পাল্টে দেওয়ার চেষ্টা করা হয় ট্রাম্প টিমের পক্ষ থেকে। তবে সবচেয়ে বেশি হস্তক্ষেপের চেষ্টা ছিল জর্জিয়াতেই। এখানকার ফুল্টন কাউন্টির ডিস্ট্রিক্ট অ্যাটর্নি ফ্যানি টি. উইলিস ট্রাম্প ওতার মিত্রদের বিরুদ্ধে হস্তক্ষেপের অভিযোগ আনতে যাচ্ছেন।

জর্জিয়ার রিপাবলিকান সেক্রেটারি অব স্টেট ব্র্যাড রাফেনস্পারগারকে সাবেক প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প একটি কুখ্যাত ফোন কল  করেছিলেন। ট্রাম্প তাকে বলেছিলেন, প্রায় ১২ হাজার বা ফল পাল্টে দেওয়ার মতো ভোট খুঁজে বের করতে। তার সহযোগীরা ব্যালট জালিয়াতির মিথ্যা অভিযোগ দিয়ে নির্বাচনি কর্মীদের হয়রানি করেছে।  হুমকি এতটা ভয়ঙ্কর ছিল যে এক কর্মীকে লুকিয়ে রাখা হয়েছিল।

ট্রাম্প নির্বাচনে জয়ী হয়েছেন তা প্রমাণ করার জন্য তারা ভুয়া স্থানীয় ভোটার মোতায়েন করেছিল। এমনকি বিচার বিভাগের একজন সরকারি আইনজীবী গোপনে প্রেসিডেন্টের সঙ্গে ফলাফল উল্টে দিতে ষড়যন্ত্র করেছিলেন।

কংগ্রেস যেদিন প্রতিদ্বন্দ্বী জো বাইডেনের ফলাফলকে প্রত্যয়ন করে সেদিন সহযোগীরা একটি গ্রামীণ জর্জিয়া কাউন্টির নির্বাচনি অফিসে ঢুকে পড়ে, ব্যালট জালিয়াতির মিথ্যা অভিযোগ প্রমাণের জন্য রাজ্য জুড়ে ভোটিং মেশিনে ব্যবহৃত সংবেদনশীল সফ্টওয়্যারগুলো কপি করেছিল।

জর্জিয়ার তদন্তে আইনজীবী রুডলফ ডব্লিউ জিউলিয়ানি, কেনেথ চেসেব্রো এবং জন ইস্টম্যান থেকে শুরু করে নির্বাচনের সময় হোয়াইট হাউজের চিফ অফ স্টাফ মার্ক মিডোস পর্যন্ত ট্রাম্পের হাই-প্রোফাইল মিত্রদের অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে। কম  প্রচারে থাকা জর্জিয়ার স্থানীয় কয়েকজনকে তদন্তের  আওতায়  রাখা হয়েছে।

সোমবার ফুল্টন কাউন্টির ডিস্ট্রিক্ট অ্যাটর্নি ফ্যানি টি. উইলিস মামলা উপস্থাপন করার পর ফুলটন কাউন্টির গ্র্যান্ড জুরির পক্ষ থেকে ট্রাম্প ও তার মিত্রদের বিরুদ্ধে অভিযোগ আনা হতে পারে। অভিযুক্ত ব্যক্তিদের সংখ্যা আরও বাড়তে পারে। যদি অভিযোগ গঠন করা হয় তাহলে ভোটের পর ৯ সপ্তাহ তারা কীভাবে মানুষকে মিথ্যার দিকে ঠেলে দিয়েছেন তা উঠে আসবে।  

 





Source link

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back To Top