ঝিনাইদহে শিশু হত্যার দায়ে ৪ জনকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড


যাবজ্জীবন কারাদণ্ডাদেশ পাওয়া আসামিরা। ছবি: আজকের পত্রিকা ঝিনাইদহ সদরের অচিন্তনগর গ্রামে অপহৃত শিশু মনিরা খাতুন (৫) হত্যা মামলায় চারজনকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ডাদেশ দিয়েছেন আদালত। আজ রোববার দুপুরে এই রায় ঘোষণা করেন দায়রা জজ আদালতের বিচারক মো. নাজিমুদ্দৌলা।

দণ্ড পাওয়া আসামিরা হলেন জেলার সদর উপজেলার অচিন্তনগর গ্রামের মো. জাফর, শিপন, মিন্টু ও মুজিবার রহমানের স্ত্রী মোছা নূপুর। তাঁদের কারাগারে পাঠানো হয়েছে। নিহত শিশু মনিরা খাতুন একই গ্রামের রমজান আলীর মেয়ে।

রায়ের বিষয়টি নিশ্চিত করেন মামলায় বাদীপক্ষের আইনজীবী ইসারত হোসেন খোকন। তিনি বলেন, ‘এই রায়ে আমরা সন্তুষ্ট না। একটা শিশু হত্যার ঘটনায় আরও কঠোর শাস্তি হওয়া দরকার আসামিদের। উচ্চ আদালতের আসামিদের সর্বোচ্চ শাস্তির জন্য পুনরায় আমরা আপিল করব।’

এদিকে আসামিপক্ষের আইনজীবী ফারহানা তানি রেশমা বলেন, ‘রাষ্ট্রপক্ষ ইচ্ছামতো সাক্ষী উপস্থাপন করেছে। এখানে রায় সঠিক হয়নি। কারণ, যাদের দণ্ড দেওয়া হয়েছে, তাঁরা জড়িত নন ঘটনার সঙ্গে। উচ্চ আদালতে ন্যায়বিচারের জন্য আপিল করব।’

আদালত থেকে জানা গেছে, ২০১৫ সালের ৭ জুলাই বিকেলে বাড়ির পাশে খেলা করা অবস্থায় শিশু মনিরা খাতুন নিখোঁজ হয়। পরে ওই দিন সন্ধ্যায় অপহরণকারী এক ব্যক্তি শিশুটির পরিবারের কাছে মোবাইল ফোনে ভয়ভীতি দেখান এবং বলেন তাঁদের কথা শুনলে শিশুটিকে ফেরত পাবে। এভাবে কয়েক দিন যাওয়ার পর ওই বছর ১০ জুলাই থেকে শিশুর পরিবারের কাছে অজ্ঞাত ব্যক্তিরা টাকা চাইতে থাকে। এরপর শিশুটির বাবা রমজান আলী থানায় অপহরণ মামলা করেন।

আদালত থেকে আরও জানা গেছে, অপহরণের পর শিশুটি ঘন ঘন কান্নাকাটি করলে তাকে একাধিক ঘুমের ওষুধ খাইয়ে দেন অপহরণকারীরা। এতে মৃত্যু হয় শিশুটির। এরপর মরদেহ বস্তায় ভরে শিশুটির বাড়ির পাশে পাটখেতে ফেলে যান তাঁরা। পুলিশ মামলার তদন্ত শেষে ২০১৬ সালের মার্চ মাসের ৩১ তারিখ আদালতে অভিযোগপত্র দেয়। শুনানি শেষে আদালত আজ চারজনকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ডাদেশ দেন।





Source link

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back To Top