এই অঞ্চলে খাদ্যচক্রের ভারসাম্য রক্ষায় ‘এপিআরএসি’ ভূমিকা রাখবে: স্পিকার


ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের  নবাব নওয়াব আলী চৌধুরী সিনেট ভবনে শুরু হয়েছে দুই দিনব্যাপী এশিয়া-প্যাসিফিক রাইট টু ফুড অ্যান্ড এগ্রিফুড সিস্টেম কনফারেন্স (এপিআরএসি)-২০২৩। এই সম্মেলন উদ্বোধন করেছেন জাতীয় সংসদের স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী। এসময় তিনি বলেন, ‘এই সম্মেলন এশিয়া-প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলে খাদ্যচক্রের ভারসাম্য রক্ষায় ভূমিকা রাখবে।’ এই সম্মেলন থেকে অনেক পরামর্শ আসবে; যা ভবিষ্যৎ করণীয় নির্ধারণে সহায়ক হতে পারে বলেও উল্লেখ করেন তিনি।

বুধবার (২৬ জুলাই) ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে সম্মেলনের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত হয়ে তিনি এসব কথা বলেন। 

রাইট টু ফুড বাংলাদেশ সম্মেলনটির আয়োজন করেছে। সংগঠনটি খাদ্য অধিকার ও কৃষি খাদ্যব্যবস্থা সম্মেলনে অংশগ্রহণকারী অনেক সংগঠনের প্রতিনিধিত্ব করছে বলে মন্তব্য করেন স্পিকার শিরীন শারমিন।

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ১৯৭১ সালে মহান মুক্তিযুদ্ধের পর যুদ্ধবিধ্বস্ত বাংলাদেশে খাদ্যাভাব দূরীকরণ ও কৃষির পুনর্গঠনে যুগান্তকারী পদক্ষেপ নিয়েছিলেন উল্লেখ করে স্পিকার বলেন, বঙ্গবন্ধু বিশেষভাবে কৃষি গবেষণার ওপর গুরুত্বারোপ করেছিলেন, যার সুফল আমরা আজও পেয়ে যাচ্ছি। তিনি (বঙ্গবন্ধু) কৃষি ভূমিতে কর মওকুফের ব্যবস্থা করেছিলেন।’

‘বাংলাদেশের মানুষ খুবই কর্মঠ, তাই আজ বাংলাদেশ খাদ্যে স্বয়ংসম্পূর্ণ’, যোগ করেন শিরীন শারমিন চৌধুরী।

তিনি বলেন, ‘কোভিড- ১৯ পরবর্তী পরিস্থিতিতে সংকটপূর্ণ সময়ে পৃথিবীতে অনেক দেশেই খাদ্যাভাব লক্ষ্য করা যায়। সমতাভিত্তিক ও টেকসই খাদ্য নিরাপত্তা অর্জনে অন্তর্ভুক্তিমূলক সমাধানের দিকে সকলকে এগোতে হবে। সকলের জন্য পর্যাপ্ত খাদ্য নিশ্চিত করাই লক্ষ্য।’

জনসংখ্যা বৃদ্ধি ও নগরায়ণের সঙ্গে সঙ্গে খাদ্য চাহিদাও বাড়ে উল্লেখ করেন স্পিকার। পানিসম্পদ ব্যবস্থাপনা, জলবায়ু পরিবর্তন, প্রাকৃতিক দুর্যোগ ইত্যাদি চ্যালেঞ্জ মোকাবিলা করে সবার জন্য ‘খাদ্য নিরাপদ এশিয়া-প্যাসিফিক অঞ্চল’ নিশ্চিত করতে সবাইকে একযোগে কাজ করার আহ্বান জানান স্পিকার।

রাইট টু ফুড বাংলাদেশের চেয়ারম্যান কাজী খলিকুজ্জামান আহমেদের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে পরিকল্পনা মন্ত্রী এম এ মান্নান বক্তব্য দেন। অনুষ্ঠানে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর ড. মো. আক্তারুজ্জামান, নেপালের প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের যুগ্মসচিব সঞ্জীভ কুমার কার্না, কেয়ার-এর কান্ট্রি ডিরেক্টর রামেশ সিং এবং রাইট টু ফুড বাংলাদেশের সাধারণ সম্পাদক মহসিন আলী গেস্ট অব অনার হিসেবে বক্তব্য রাখেন। অনুষ্ঠানে বিভিন্ন গণ্যমান্য ব্যক্তি ও গণমাধ্যমকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।





Source link

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back To Top