আরব লীগের সম্মেলনে ভাষণ দেবেন বাশার আল-আসাদ


সৌদি আরবে আরব লীগের শীর্ষ সম্মেলনে শুক্রবার ভাষণ দিতে যাচ্ছেন সিরিয়ার প্রেসিডেন্ট বাশার আল-আসাদ। ১২ বছরেরও বেশি সময় পর এই আঞ্চলিক সম্মেলনে এটাই তার প্রথম উপস্থিতি।

প্রেসিডেন্ট আসাদ বৃহস্পতিবার রাতে লোহিত সাগরের বন্দর নগরী জেদ্দায় গিয়ে পৌঁছেছেন। এ শহরেই আরব লীগের শীর্ষ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হচ্ছে।

গণতন্ত্রপন্থী বিক্ষোভের নৃশংস দমন এবং দীর্ঘস্থায়ী গৃহযুদ্ধের কারণে তার দেশ সিরিয়াকে আরব লীগ থেকে বহিষ্কার করা হয়েছিল। আরব বিশ্বের এই মঞ্চে বাশার আল আসাদের প্রত্যাবর্তন সম্ভব হয়েছে এই শীর্ষ সম্মেলনের আয়োজক দেশ সৌদি আরব এবং সংযুক্ত আরব আমিরাতের হস্তক্ষেপে। কিন্তু অন্য দেশগুলো এ ব্যাপারে হতাশা প্রকাশ করেছে।

গত ফেব্রুয়ারিতে তুরস্ক এবং উত্তর-পশ্চিম সিরিয়ায় আঘাত হানা বিধ্বংসী ভূমিকম্পের পর আরব প্রতিবেশীদের সঙ্গে সিরিয়ার সম্পর্ক ত্বরান্বিত হয়। সে সময় এক সময়ের শত্রুভাবাপন্ন দেশগুলো সিরিয়ার সরকার-নিয়ন্ত্রিত এলাকায় মানবিক সাহায্য পাঠানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছিল।

ওদিকে, চীন গত মার্চ মাসে এক শান্তিচুক্তিতে মধ্যস্থতা করে যাতে সৌদি আরব তার দীর্ঘ দিনের আঞ্চলিক প্রতিদ্বন্দ্বী ইরানের সঙ্গে কূটনীতিক সম্পর্ক পুনঃস্থাপন করে। অন্যদিকে ইরান রাশিয়ার সঙ্গে মিলে আসাদের বাহিনীকে সিরিয়ার বৃহত্তম শহরগুলোর নিয়ন্ত্রণ পুনরুদ্ধার করতে সহায়তা করে।

তবে সিরিয়ার একটি বড় অংশ এখনও তুর্কি-সমর্থিত বিদ্রোহী, জিহাদি এবং মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র সমর্থিত কুর্দি-নেতৃত্বাধীন মিলিশিয়া যোদ্ধাদের দখলে রয়েছে। গৃহযুদ্ধ শুরু হওয়ার আগে সিরিয়ার জনসংখ্যা ছিল দুই কোটি ২২ লাখ। সংঘাত শুরু হওয়ার পর এর অর্ধেক তাদের বাড়িঘর ছেড়ে পালিয়ে যেতে বাধ্য হয়।

প্রায় ৬৮ লাখ মানুষ অভ্যন্তরীণভাবে বাস্তুচ্যুত হয়েছেন এবং আরও ৬০ লাখ মানুষ শরণার্থী বা বিদেশে আশ্রয়প্রার্থী হয়েছেন।

সূত্র: বিবিসি

বাংলাদেশ জার্নাল/জিকে





Source link

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back To Top